অর্কিডের বিশাল সম্ভাবনার দুয়ার

Google+ Pinterest LinkedIn Tumblr +

ফুলের রাজ্যে অর্কিড এক অনিন্দ সুন্দর নাম। এর খ্যাতি বিশ্বজোড়া। বিশ্বে এর ৩০ হাজারের বেশি প্রজাতি রয়েছে। আকর্ষণীয় রঙ, বিভিন্ন ধরনের গড়ন, সুগন্ধি, ঔষধি গুণাগুণ, দীর্ঘ স্থায়িত্বকাল এসব বৈশিষ্টের কারণে অর্কিড ফুলের জনপ্রিয়তা এখন বাড়ছে। একই সঙ্গে বাড়ছে এর বাণিজ্যিক সম্ভাবনাও। বাংলাদেশেও অর্কিড জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এর চাষ বাড়িয়ে যেমন কর্মসংস্থান বাড়ানো সম্ভব, তেমনি রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেরও ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে।
বিশ্বে বর্তমানে কয়েক হাজার কোটি ডলারের অর্কিড বাণিজ্য হয়। এর সিংহভাগই করে থাইল্যান্ড। যে কারণে থাইল্যান্ডকে অর্কিড রানি বলা হয়। থাইল্যান্ড প্রতিবছর ৫০টি দেশে কমপে ৪০০ কোটি ডলার মূল্যের অর্কিড রপ্তানি করে। এর পরই রয়েছে তাইওয়ান। হল্যান্ড বছরে ফুল, বাহারি গাছ ও অর্কিড রপ্তানি করে ১২ কোটি ডলার আয় করে। ভারত, মালয়েশিয়া, তাইওয়ান, শ্রীলংকা, সিঙ্গাপুরও অর্কিড ফুল রপ্তানিতে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। যে কারণে এসব দেশ ফুল চাষকে ‘পুষ্পশিল্প’ হিসেবে ঘোষণা করেছে।
বাংলাদেশের আবহাওয়া অর্কিড চাষের উপযোগী। বাংলাদেশ ডেনড্রোবিয়াম, অনসিডিয়াম, মোকারা, ভ্যান্ডা, ক্যাটেলিয়া, এরিডিস, ফেলেনপসিস নামে বিভিন্ন অর্কিড প্রজাতির চাষ হচ্ছে। এগুলোকে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন করে এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা সম্ভব। হিমালয়ের পূর্বাংশে ঘাসিয়া পাহাড়, বাংলাদেশের সিলেট জেলার উত্তরে পাহাড়ি অঞ্চল, থাইল্যান্ড, মিয়ানমার, শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া, ফিলিপিনস, মেস্কিকো, দণি আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়ার উষ্ণ অঞ্চলে অর্কিড পাওয়া যায়। ফুলদানিতে দীর্ঘকাল সজীব থাকে বলে কাটফাওয়ার হিসেবে এর ব্যবহার সর্বাধিক। এ ছাড়া ছোট অবস্থায় এ গাছ সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে। সারা বছর জাতভেদে অর্কিডের ফুল ফোটে।
তবে দেশীয় অর্কিড মার্চ-মে মাসে সর্বাধিক পাওয়া যায়। কিছু কিছু অর্কিড বছরে দু-তিনবার ফোটে। প্রতি গাছে জাতভেদে দু-চারটি স্টিক পাওয়া যায়। দেশের বৃহত্তর সিলেট, চট্টগ্রাম, পার্বত্য চট্টগ্রাম, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, যশোর, রাজশাহীতে অর্কিড চাষের সম্ভাবনা রয়েছে।
বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে দেশি-বিদেশি জাতের অকির্ড পাওয়া যায়। এখান থেকে গাছ কিনে নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়েও অর্কিড পাওয়া যায়। এগুলো বাণিজ্যিকভাবে চাষ হলে বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব।
প্রতিবছরের মার্চে তাইওয়ানে তাইওয়ানিজ ইন্টারন্যাশনাল অর্কিড শো অনুষ্ঠিত হয়। সেটি বিশ্বের প্রধান তিনটি অর্কিড শোর একটি। সিঙ্গাপুরেও সম্প্রতি গড়ে তোলা হয়েছে সিঙ্গাপুর বোটানিক গার্ডেনের মধ্যে একটি ন্যাশনাল অর্কিড গার্ডেন। মালয়েশিয়ার ক্যামেরুন হাইল্যান্ডে আছে অনেক অর্কিড গার্ডেন। তারা শুধু বাণিজ্যিকভাবেই বিভিন্ন অর্কিড উৎপাদন করছে।
ঘর, অফিস, অনুষ্ঠানস্থল সাজাতে অর্কিডের কোনো জুড়ি নেই। যে কারণে অর্কিডকে ভালোবাসা, আভিজাত্য ও সৌন্দর্য্যরে প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বিশেষ করে অভিজাত বাসা বা অফিসে এখন অর্কিডের ব্যবহার বেশি। বাজারে বিভিন্ন প্রজাতির অর্কিড পাওয়া যায়। এগুলোর মধ্যে ক্যাঙ্গারু পকেট অর্কিড ১৫০ থেকে ৬০০ টাকা, লেডি ড্যান্স ৪০০ থেকে ৮০০, ভেন্ডা অর্কিড ২০০ থেকে ১ হাজার, লিপস্টিক অর্কিড যেগুলোয় ফুল ফোটেনি, সেগুলোর দাম ২০০ থেকে ৫০০ টাকা এবং ফুল ফোটা লিপস্টিকগুলো ১ হাজার টাকার বেশি দামে বেচাকেনা হয়। ক্যাটালিয়া অর্কিড ২০০ থেকে ৬০০ টাকা। ডেনড্রোবিয়াম অর্কিডের দাম ৪০০ থেকে ৬০০ টাকার মধ্যে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলসংলগ্ন নার্সারির ব্যবসায়ী মো. সুমন হোসেন বলেন, অর্কিডের চাহিদা আছে কিন্তু দাম বেশি হওয়ার কারণে বিক্রি কম হয়। ফুলগাছের তুলনায় অর্কিড বিক্রি কম। আমরা প্রায় ৫০ ধরনের অর্কিড বিক্রি করি। সেগুলো অচিরেই দোকানে নিয়ে আসব।
কারা বেশি কেনে জানতে চাইলে ব্যবসায়ী ইউনুস আলী বলেন, বেশিরভাগ অর্কিড শৌখিন মানুষ কেনে। এদিকে অফিস বা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের করিডোরে সাজানোর জন্যও অনেকেই অর্কিড কিনে নিয়ে যায়। লাভ কেমন হয় জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, মৌসুমে লাভ বেশি হয়। তখন আমরা মোটামুটি কম দামে অর্কিড কিনতে পারি। বেশি দামে অর্কিড কিনতে গেলে বেশি দামে বিক্রি করতে হয়। তখন বিক্রি কম হয়।
অর্কিড কিনতে আসা গৃহিণী ফারজানা ইয়াসমিনের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, আমি অর্কিড কিনতে এসেছি কিন্তু ভালো অর্কিড পেলাম না এবং কালেকশন অনেক কম। তবে দোকানদার বললেন, সামনের মাসে তারা আরও কালেকশন করবেন।

Share.

Leave A Reply